What A Common Man Should Do To Prevent Cyber Crime? (In Bengali) সাইবার অপরাধ রোধে একজন সাধারণ মানুষের কী কী করা উচিত ?


কম্পিউটার , মোবাইল , স্মার্টফোন  ইত্যাদি দ্বারা আজ জ্ঞাতসারে বা অজ্ঞাতসারে কোন না কোন ভাবে দিনের কোন একটা সময় আমরা সাইবার জগৎ বা এই ভার্চুয়াল জগতের মধ্যে ঢুকে পরি এবং এই আষ্টেপৃষ্টে বাধা জগতটার ক্ষতিকারক দিক থেকে আমরা কিভাবে বাঁচব তা আমাদের সকলকেই জানতে হবে আমার মতে প্রতিটি সাধারণ মানুষের সাইবার ক্রাইম থেকে বাঁচার জন্য নিম্নলিখিত বিষয়গুলো জানা এবং মেনে চলা উচিত :

প্রথমত: আমরা এই ধরণের অভিযোগ থাকলে নিকটাবর্তী থানায় অভিযোগ জানাতে পারি। কোলকাতার লোকদের সুখবর তাদের জন্য লালবাজারে নির্দিষ্ট সাইবার পুলিস স্টেশণ আছে। অন্যজায়গাতেও এর বিকল্প ব্যবস্থা আছে। কোন রকম অশ্লীল মেল বা পোস্ট যদি আপনার কাছে আসে সেক্ষেত্রে নির্দিষ্ট থানায় অভিযোগের সাথে ঐ মেল বা পোস্টের একটা প্রিন্ট দেবেন এবং আপত্তিজনক সাইটের ইউআরএল সংরক্ষণ করুন এবং তদন্ত কর্তৃপক্ষকে সরবরাহ করুন|ফেসবুকের বা অন্য সাইটের লগ ফাইলের ডেটা অক্ষত থাকা দরকার।


থানায় অভিযোগ জানানো ছাড়া ও তথ্যপ্রযুক্তি আইনের যে কোন ধারায় অপরাধ করলে ৫ কোটি টাকা পর্যন্ত ক্ষতিপূরণের জন্য অ্যাডজুডিকেটারের নিকট আবেদন করতে পারেন। অ্যাডজুডিকেটার হলেন রাজ্যের তথ্য প্রযুক্তি বিভাগের সম্পাদক


তথ্য প্রযুক্তি (পাবলিক দ্বারা তথ্যে প্রবেশ করার ক্ষেত্রে অবরোধ করার কার্যপ্রণালী এবং সুরক্ষা) বিধি 2009 অনুযায়ী কোন ব্যক্তি নির্দিষ্ট প্রদ্ধতিতে উপযুক্ত আধিকারীকের কাছে সর্বসাধারণের দ্বারা তথ্যে প্রবেশের ক্ষেত্রে ব্লক বা বন্ধ করার জন্য অভিযোগ করতে পারেন বা নোডাল আধিকারীকের মাধ্যমেও অভিযোগ করতে পারেন।


মনে রাখতে হবে ইন্টারনেটে তথ্যের কমবেশী ৬০ শতাংশ, পর্নোগ্রাফির সঙ্গে সম্পর্কযুক্ত তাই সাইবার আইন বিশেষজ্ঞদের মতে ভারতীয় শিশু বা নারীদের একটি বড় অংশ এর লক্ষ্যবস্তু হতে পারে। তাই ফেসবুক ইত্যাদিতে বিচরণ করার সময় সাবধানতা রাখতে হবে। চেনা বৃত্তের বাইরের বন্ধুদের সাথে সতর্ক হয়ে তথ্য আদানপ্রদাণ করা উচিত। নাবালক ও নাবালিকাদের ক্ষেত্রে চরম সতর্কতা বাড়ীর অবিভাকদের নেওয়া উচিত।


অনলাইন সাইটগুলি এড়িয়ে চলুন যা ইউআরএল http দিয়ে শুরু করে এবং কেবল https বহনকারী সাইট ব্যবহার করে |


মোবাইল অ্যাপ্লিকেশন ইনস্টল ও ব্যবহার করার সময় সতর্কতা অবলম্বন করুন |
কোনও ব্যাংক বা ফিনান্সিয়াক ইনস্টিটিউট কখনও আপনাকে ফোনে আপনার ব্যক্তিগত ডেটা জিজ্ঞাসা করবে না |


আপনাকে বোকা বানানোর বিভিন্ন ধরণের ফিশিং আক্রমণ থেকে সাবধান থাকুন |


সঠিক জ্ঞান ব্যতীত কোনও অজানা লিঙ্কে ক্লিক করবেন না |


আপনার অনলাইন অ্যাকাউন্টের পাসওয়ার্ড প্রায়ই পরিবর্তন করার চেষ্টা করুন |


আপনার পাসওয়ার্ডে অক্ষর, সংখ্যা, বিশেষ অক্ষর থাকা উচিত। এটিতে কোনও অভিধানের শব্দ থাকা উচিত নয়।


আপনার নেটব্যাঙ্কিং ডেটা সুরক্ষিত রাখুন|


মোবাইল এবং আপনার কম্পিউটারের জন্য একটি শক্তিশালী অ্যান্টিভাইরাস ব্যবহার করুন |


পাইরেটেড সফটওয়্যার ব্যবহার করা এড়িয়ে চলুন |


সুরক্ষা রক্ষী নেই এমন এটিএম এড়িয়ে চলুন|


আপনার মোবাইল, কম্পিউটার ইত্যাদির জন্য শক্তিশালী পাসওয়ার্ডও ব্যবহার করুন|


কখনও কোনও ফাঁদ, অনলাইন স্কিম বা লটারি বা ভুল প্ররোচনার ফাঁদে পড়বেন না|


আপনি যখন ব্যাংকিং করছেন, কেনাকাটা করছেন বা অনলাইনে আপনার বিল পরিশোধ করবেন, ওয়েবসাইটটির URL ‘https’ দিয়ে শুরু হয় কিনা তা দেখুন। প্যাডলক/ তালা আইকনটিও সন্ধান করুন যা ইঙ্গিত দেয় যে সংযোগটি সুরক্ষিত |


অদ্বিতীয় এবং অনুমান করা শক্ত এমন পাসওয়ার্ডগুলি নির্বাচন  করুন। বড় হাতের অক্ষর, ছোট হাতের অক্ষর, সংখ্যা এবং বিশেষ অক্ষর ব্যবহার করে একটি পাসওয়ার্ডে সর্বনিম্ন 10 টি অক্ষর থাকা উচিত I আপনার পক্ষে মনে রাখা সহজ তবে আক্রমণকারীর পক্ষে অনুমান করা শক্ত, একটি সংক্ষিপ্ত রূপ তৈরি করুন I


বিভিন্ন অনলাইন অ্যাকাউন্টের জন্য কখনও একই পাসওয়ার্ড রাখবেন না। যদি একটি পাসওয়ার্ড হ্যাক হয়ে যায় তবে আপনার অন্যান্য অ্যাকাউন্টগুলি আপস করা হবে না |


আপনার পাসওয়ার্ড বা পরিচয়-পংক্তিগুলি গোপনীয় রাখুন I এগুলি অন্যের সাথে ভাগ করে নেবেন না বা লিখবেন না I আপনার শংসাপত্রগুলির সাথে যুক্ত সমস্ত ক্রিয়াকলাপের জন্য আপনি দায়বদ্ধ I


আপনার পরিচিত বা পরিচিত ব্যক্তিদের সাথে যোগাযোগ রাখতে আপনার প্রাথমিক ইমেল ঠিকানাটি ব্যবহার করুন I


সামাজিক মিডিয়া সাইটগুলির জন্য, এমন ইমেল ঠিকানা ব্যবহার করুন যা আপনি গুরুত্বপূর্ণ যোগাযোগের জন্য ব্যবহার করেন না I


ইন্টারনেটে শপিং বা ব্যাংকিংয়ের জন্য এমনকি আপনার সামাজিক মিডিয়া প্রোফাইলগুলিতে লগ ইন করার জন্য ফ্রি, অনিরাপদ ওয়াই-ফাই ব্যবহার করা এড়িয়ে চলুন I


পুরানো অনলাইন অ্যাকাউন্টগুলি বন্ধ করুন যা আপনি আর ব্যবহার করবেন না I


যে কোনও ফ্রি সফটওয়্যার ডাউনলোড করার আগে সফ্টওয়্যারটি এবং এটি হোস্টিং করা ওয়েবসাইটটি পরীক্ষা করে দেখুন ।


অ্যাড্রেস বারে আপনার ব্যাঙ্কের ওয়েবসাইটে ম্যানুয়ালি URL লিখে টাইপ করুন। এটি কোনও ইমেল বা কোনও টেক্সট মেসেজ থেকে কখনও অ্যাক্সেস করবেন না।


আপনার সমস্ত গুরুত্বপূর্ণ ফাইলগুলির নিয়মিত ব্যাকআপ নিন I এটি করা আরও গুরুত্বপূর্ণ কারণ মুক্তিপণ আক্রমণগুলি এখন ব্যাপক আকার ধারণ করেছে


যখন তথ্য আর প্রয়োজন হয় না তখন সঠিকভাবে তথ্য নষ্ট করুন।


সংবেদনশীল তথ্য মুদ্রণ, অনুলিপি, ফ্যাক্সিং বা আলোচনা করার সময় আপনার চারপাশ সম্পর্কে সচেতন হন।


যখন ব্যবহার না করা হবে তখন আপনার কম্পিউটার এবং মোবাইল ফোন লক করুন।


মনে রাখবেন যে ওয়্যারলেস অন্তর্নিহিত সুরক্ষিত I সর্বজনীন ওয়াই-ফাই হটস্পট ব্যবহার করা এড়িয়ে চলুন।


সন্দেহজনক ক্রিয়াকলাপ এবং সাইবারের ঘটনা সম্পর্কিত কর্তৃপক্ষকে রিপোর্ট করুন |


এমন একটি অ্যান্টিভাইরাস সফ্টওয়্যার ব্যবহার করতে পারেন যা বহু-স্তরযুক্ত সুরক্ষা দেয় যা সংক্রামিত ওয়েবসাইট, ইমেল এবং ডাউনলোডগুলিকে অবরুদ্ধ করতে পারে।
আপনার সমস্ত সফ্টওয়্যার আপ টু ডেট রাখুন |


আপনার ব্যক্তিগত তথ্য সোশ্যাল মিডিয়া সাইট এবং ইন্টারনেটে সাধারণভাবে প্রকাশ করা এড়িয়ে চলুন |


ওয়েবসাইটগুলিতে বিশেষত পাবলিক কম্পিউটারে ‘আমাকে লগ ইন করুন’ বা ‘আমাকে মনে রাখুন’ বিকল্পগুলি এড়িয়ে চলুন |


কখনই আপনার পাসওয়ার্ড হিসাবে আপনার ব্যক্তিগত তথ্য যেমন নাম, জন্ম তারিখ, ঠিকানা ইত্যাদি ব্যবহার করবেন না |


আপনার স্ক্রিনে আসতে পারে এমন পপ-আপ বিজ্ঞাপনগুলিতে কখনও সাড়া দেবেন না।


অনুপযুক্ত ওয়েবসাইট বা আপনি পুরোপুরি অবগত নন এমন ওয়েবসাইট পরিদর্শন করা এড়িয়ে চলুন |


আপনার কাজ শেষ হয়ে গেলে সর্বদা অনলাইন অ্যাকাউন্ট থেকে লগ আউট করুন। আপনি একটি পাবলিক কম্পিউটার ব্যবহার করছেন তখন এটি বিশেষত গুরুত্বপূর্ণ I


কখনও অযাচিত, অপ্রত্যাশিত ইমেলগুলির লিঙ্কগুলিতে ক্লিক করবেন না বা সংযুক্তিগুলি ডাউনলোড করবেন না, এমনকি যদি এই জাতীয় ইমেলগুলি দেখে মনে হয় সেগুলি একটি পরিচিত উৎস থেকে এসেছে I


আপনার কাজের কম্পিউটারে অননুমোদিত প্রোগ্রামগুলি ইনস্টল করবেন না I


ওয়েবসাইট এবং ওয়েব ব্রাউজারগুলিতে আপনার ক্রেডিট / ডেবিট কার্ডের তথ্য সংরক্ষণ করা থেকে বিরত থাকুন |


প্রেরক প্রকৃত বলে মনে হলেও ফোন, ইমেল বা এসএমএসে কখনই আপনার ব্যক্তিগত / ব্যাঙ্কের বিবরণ জানাবেন না |


অফিসের চারপাশে সংবেদনশীল তথ্য রাখবেন না। আপনার ডেস্কে ব্যক্তিগত তথ্যযুক্ত প্রিন্টআউট বা পোর্টেবল মিডিয়া ছেড়ে যাবেন না I ব্যক্তিগত তথ্য প্রকাশের ঝুঁকি হ্রাস করতে এগুলিকে একটি ড্রয়ারে লক করুন |


কোনও সামাজিক বা সংবেদনশীল তথ্য যেমন ক্রেডিট কার্ড নম্বর, পাসওয়ার্ড বা অন্যান্য ব্যক্তিগত তথ্য, সোশ্যাল মিডিয়া সাইটগুলি সহ পাবলিক সাইটে পোস্ট করবেন না, এবং অনুমতি না দেওয়া পর্যন্ত এটি ইমেলের মাধ্যমে প্রেরণ করবেন না I আপনার ব্যক্তিগত তথ্য সুরক্ষিত করতে সামাজিক মিডিয়া সাইটগুলিতে গোপনীয়তা সেটিংস ব্যবহার করবেন |


যদি কোনও ডিভাইস হারিয়ে যায় বা চুরি হয়ে যায় তবে তা অবিলম্বে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষকে জানান।

ব্যবহারে না লাগলে ওয়্যারলেস বা ব্লুটুথ চালু করবেন না |


সাইবার অপরাধের বিরুদ্ধে কীভাবে সচেতন হতে হবে ?

সানন্দা ফেসবুক লাইভ : লকডাউন এবং সাইবার অপরাধ

Comments

  1. Very very good information and most valuable advice for us.

    ReplyDelete
  2. Thanks ......please share with others....

    ReplyDelete
  3. Kaustav ChatterjeeAugust 14, 2020 at 2:31 AM

    Extremely pertinent steps, tips and checks and balances shared by Bivas Sir for creating awareness amongst the populace regarding safe guards to be taken while navigating the cyber space. Once again the altruistic character of his, is on glorious display by dint of this wonderful article.

    ReplyDelete
  4. This is so informative for the people at large. Even it will be so supportive for the practising advocates like us who are eager to help/ to make aware the litigants more about this virtual world.

    ReplyDelete

Post a Comment

Popular posts from this blog

65B Certificate Format | Certificate u/s 65B Indian evidence act

Whether Certificate u/s 65B of Indian Evidence Act mandatory? Latest Judgement on Electronic Evidence Law In India